আ্যলোভেরা রস খাওয়ার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নিন

আ্যলোভেরা রস খাওয়ার কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে জেনে নিন

আ্যলোভেরা Alovera  এই নামটির সঙ্গে বহু মানুষ ধীরে ধীরে পরিচিত হয়ে উঠেছে।আ্যলোভেরার অপর নাম ঘৃতকুমারী।সবচেয়ে কার্যকরী প্রসাধনী সামগ্রীগুলির অন্যতম হল অ্যালোভেরা জেল। মুখের সৌন্দর্যের জন্য প্রচুর মানুষ অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করেন। স্বাস্থ্যের উপকারের জন্য কেউ কেউ অ্যালোভেরা খানও। ত্বকের জেল্লা ফেরাতে, ত্বকের মরা কোষ দূর করতে বা চুল পড়া বন্ধ করতে সবেরই ওষুধ এই আ্যলোভেরা। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই আ্যলোভেরা খাওয়া এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে।

১.ডায়রিয়া - অ্যালোভেরা খাওয়ার জেরে ডায়রিয়া হতে পারে। কারণ এর রসে অ্যানথ্রাকুইনোন নামক একটি উপাদান রয়েছে যা আসলে রেচক। এই কারণে, এটি সেবনকারী ব্যক্তি ডায়রিয়ার কবলে পড়তে পারেন।

২.পেটে ব্যথা - অ্যালোভেরা পাকস্থলীর জন্য খুবই উপকারী। তবে মনে রাখবেন এতে থাকা ল্যাটেক্স কোলাইটিস, ক্রোনস ডিজিজ, অ্যাপেনডিসাইটিস, ডাইভার্টিকুলোসিস, অন্ত্রে বাধা, রক্তপাত, পেটে ব্যথা এবং আলসারের মতো সমস্যাও সৃষ্টি করতে পারে।

৩.আ্যলার্জি - অ্যালোভেরার রস পান করার সময় সাবধানতা অবলম্বন না করলে অ্যালার্জি হতে পারে। ঘৃতকুমারী খাওয়ার কারণে ত্বকে ফুসকুড়ি বা আমবাত, চুলকানি, শ্বাস নিতে অসুবিধা, বুকে ব্যথা এবং গলায় জ্বালাপোড়ার মতো লক্ষণ দেখা দিতে পারে। 

৪.জরায়ু সংকোচন - গর্ভবতী বা স্তন্যদানকারী মহিলারা অ্যালোভেরার রস ভুলেও খাবেন না। এটি গর্ভবতী মহিলাদের জরায়ু সংকোচনের ঝুঁকি বাড়ায় এবং গর্ভপাত ও জন্মগত ত্রুটির কারণ হয়ে উঠতে পারে।

৫.অতিরিক্ত অ্যাড্রেনালিন তৈরি - অ্যালোভেরার রস শরীরে অতিরিক্ত অ্যাড্রেনালিন তৈরি করতে পারে, যা হার্টের রোগীদের জন্য ক্ষতিকর।

৬.কিডনির সমস্যা হতে পারে - অ্যালোভেরার রস বেশি মাত্রায় গ্রহণ করলে পেলভিসে রক্ত ​​জমা হতে পারে, যা আপনার কিডনির ক্ষতি করতে পারে। তবে এত কিছুর পরও অ্যালোভেরা খুব উপকারী যদি সঠিক পরামর্শ অনুযায়ী সেবন করা হয় তো। 

৭.ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ে - অ্যালোভেরার দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারে সিউডোমেলিওসিস কোলাই হতে পারে। এটি কোলোরেক্টাল ক্যান্সারেরও ঝুঁকি বাড়ায়।