শরীরের নানা সমস্যার সমাধান করতে লিকার চা এর অবদান

শরীরের নানা সমস্যার সমাধান করতে লিকার চা এর অবদান

পানীয়ের মধ্যে চা যে খুব জনপ্রিয় তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। আড্ডা দিতে, ক্লান্তি দূর করতে, কাজের ফাঁকে আর কিছু না হোক ১-২ কাপ চা খাওয়া হয়েই থাকে। এই  পানীয়টি ছাড়া কোনো কিছুই যেন ঠিকঠাক জমে না।এইপানীয়টা সবার কাছে নিত্যদিনের খুবই সাধারণ ব্যাপার। এর মধ্যে চা একটি উপকারী পানীয়।চা গাছ থেকে চা পাতা পাওয়া যায়। আর এই চা পাতা থেকে তৈরি হয় চায়ের গুঁড়ো। যা চা পাতা নামে পরিচিত। ফিগার সচেতন যারা তারা অনেকেই গ্রিন টি বা সবুজ চা খায়।চা এর মধ্যে লিকার চা অন্যতম। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই লিকার চা এর উপকারিতা সম্পর্কে।

১.আ্যন্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ- লিকার চা এর মধ্যে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। যা শরীর থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে শরীর যাতে ঠিকমতো কাজ করতে পারে সেদিকেও খেয়াল রাখে। যাঁদের বিভিন্ন ক্রনিক সমস্যা রয়েছে তাঁদের জন্যেও লিকার চা খাওয়া খুব ভালো। 

২.ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা কমে- চিনি ছাড়া লিকার চা যদি নিয়মিত খাওয়া যায় তাহলে কিন্তু ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা কমে অনেক খানি। টিউমারের গ্রোথ কম করার ক্ষমতা রয়েছে চায়ের। এছাড়াও ত্বক, ব্রেস্ট, ফুসফুস ও প্রোস্টেটের ক্যানসার থেকে বাঁচতে অবশ্যই লিকার চা খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে।

৩.ত্বকের জন্য ভালো- চায়ের মধ্যে যে ক্যাফেন থাকে তা কিন্তু চুল আর ত্বকের জন্য খুব ভালো। তবে দুধ, চিনি দেওয়া কড়া চা একদম নয়। ত্বক ভালো রাখতে সকালে এক কাপ চিনি ছাড়া চা খাওয়া এর অভ্যাস করতে হবে।

৪.হার্ট ভালো রাখে- হার্টকে ভালো রাখতে সাহায্য করে লিকার চা। নিয়মিত খেলে হার্টের সমস্যা কমে। এছাড়াও ব্লাড প্রেসার, কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড, ওবেসিটির সমস্যা থেকেও দূরে থাকা যায়।

৫.কোলেস্টেরলের সমস্যা দূর করতে- কোলেস্টেরল বাড়লে হার্ট, স্ট্রোকের মতো সমস্যার সম্ভাবনা থাকে খুব বেশি। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে যাঁরা নিয়মিত লিকার চা খায় তাঁদের মধ্যে এই কোলেস্টেরলের সমস্যা কিন্তু অনেক খানিই কমে।

৬.একাগ্রতা বাড়ে- সব সময় একমনে কাজ করা সম্ভব হয় না। একটা টি ব্রেক কিন্তু সকলের জন্যই জরুরি। এতে মন ভালো থাকে। সেই সঙ্গে কাজে এনার্জিও পাওয়া যায়। তাই কাজের ফাঁকে কফি নয়, চুমুক দিতে হবে লিকার চায়ে। নিয়ম করে লিকার চা খেলে কাজও ভালো হয়।