বাংলাদেশের স্বরূপকাঠি শহর

বাংলাদেশের স্বরূপকাঠি শহর

স্বরূপকাঠি Swarupkathhi  বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের একটি ছোট শহর। এটি বরিশাল বিভাগের অন্তর্গত পিরোজপুর জেলায় অবস্থিত নেছারাবাদ  উপজেলার প্রধান শহর। প্রশাসনিকভাবে শহরটি নেছারাবাদ  উপজেলার সদর দফতর। এটি জনসংখ্যার বিচারে পিরোজপুর জেলার দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর।স্বরূপকাঠী শহরের অবস্থানের অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশ হল ২২.৭৪৬৩২৯° উত্তর ৯০.১১৭২৫৬° পূর্ব। সমুদ্র সমতল থেকে শহরটির গড় উচ্চতা ১০ মিটার।

১৭৯০ সালে পিরোজপুর থানার উত্তরাংশে কাউখালী গ্রামের কাছে কালীগঙ্গা নদীর তীরে কেওয়ারী গ্রামে কেওয়ারী নামে একটি থানা স্থাপিত হয় যা নদী ভাঙ্গনে বিলীন হয়ে গেলে ১৯০৬ সালে কেওয়ারী থানাকে স্থানান্তরিত করে স্বরূপকাঠীতে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করা হয় হয়। ১৯৮৩ সালে থানাকে উপজেলায় রূপান্তর করা হলে এটি স্বরূপকাঠি উপজেলার শহর হিসেবে গঠিত হয়।

১৯৮৫ সালে স্বরূপকাঠি উপজেলার নাম বিতর্কিত ভাবে পরিবর্তন করে নেছারাবাদ রাখেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান হুসেন মুহম্মদ এরশাদ। ১৯৯৮ সালে স্বরূপকাঠি পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হলে স্বরূপকাঠি পৌরশহরের মর্যাদা লাভ করে।

বাংলাদেশের আদমশুমারি ও গৃহগণনা-২০১১ অনুযায়ী স্বরূপকাঠী শহরের মোট জনসংখ্যা ৪৮,০২৪ জন যার মধ্যে ২৪,৪৯৬ জন পুরুষ এবং ২৩,৫২৮ জন নারী। এ শহরের পুরুষ এবং নারী অনুপাত ১০৪:১০০।স্বরূপকাঠী শহরের স্বাক্ষরতার হার শতকরা ৭৫.৬ শতাংশ। উচ্চ শিক্ষার জন্য শহরে ১টি সরকারি কলেজ ও ১টি বেসরকারি মহিলা কলেজ রয়েছে।

এছাড়াও প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষার জন্য ৬টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৪টি মাদ্রাসা রয়েছে।কাঠ ব্যবসার জন্য স্বরূপকাঠীর নাম দেশব্যপী পরিচিত। কাঠ ব্যবসার পাশাপাশি বর্তমানে জাহাজ নির্মাণ শিল্প, বিভিন্ন কুটির শিল্পের প্রসার ঘটেছে।