এবার স্বাক্ষর দেখে বুঝে নিন মানুষটি কেমন

এবার স্বাক্ষর দেখে বুঝে নিন মানুষটি কেমন

কথায় আছে একটি ছোট সই অনেক কিছু বদলে দিতে পারে। আজকের দিনে ফর্ম ফিলাপ থেকে শুরু করে সব কাজে সই লাগে। স্বাক্ষর অর্থাৎ সই আমাদের সামগ্রিক ব্যক্তিত্বকে সংজ্ঞায়িত করে। হাঁড়িতে একটি চাল টিপে ভাত সেদ্ধ হয়েছে কিনা বোঝা যায়, তেমনই একজন ব্যক্তির স্বাক্ষর বলে দেয় তাঁর ব্যক্তিত্ব। অবিশ্বাস্য হলেও এটাই সত্য। তাহলে জেনে নেওয়া যাক স্বাক্ষর দেখে কিভাবে বুঝবেন আপনার ব্যক্তিত্ব।

১.যারা বেশি চাপ দিয়ে স্বাক্ষর করেন - এনারা সৎ, পরিশ্রমী এবং কথায় দৃঢ় হয়ে থাকেন। এঁনারা জনগণের আস্থা অর্জন করেন। গুরুত্বপূর্ণ কাজ সম্পাদন করেন। যদিও একটু নড়চড় হতে পারে। এঁদের হাতের লেখা সুন্দর। এই ধরনের মানুষরা প্রায়শই ব্যাঙ্ক অফিসের কর্মী, ক্লার্কের চাকরি বা অ্যাকাউন্টসের কাজ সঙ্গে সম্পর্কিত।

২.যারা অনেকটা জায়গা জুড়ে সই করেন - এরা মানুষকে একটু বেশি দেখতে ভালোবাসেন, যাকে ইংরেজিতে বলে 'শো অফ' এবং শৌখিন প্রকৃতির হন। তাঁদের একটি স্বাধীন ব্যক্তিত্ব আছে। নীতির নিয়ম সম্পর্কে খুব একটা চিন্তা করেন না। আয়-ব্যয় অনিশ্চিত। যদিও জীবনযাত্রার মান ভালো থাকে। ভাল বন্ধু আছে, এ ধরনের মানুষ এজেন্ট, দালাল এবং ফ্রন্ট অফিসের চাকরির সঙ্গে যুক্ত হলে লাভ পাবেন।

৩.সুন্দর ভারসাম্যপূর্ণ এবং আকর্ষণীয় সই - এনারা সুস্বাস্থ্য পান। শৃঙ্খলাবদ্ধ এবং উত্তেজিত প্রকৃতির। প্রতিটি কাজ ভালোভাবে করেন। তাঁরা নকল অপছন্দ করেন। এঁনারা ছোট দলগুলিকে আরও ভালভাবে পরিচালনা করেন। মিড লেভেলের যে কোনও চাকরিতে পুরোপুরি ফিট।

৪.ছোট, সংকীর্ণ, তাড়াহুড়ো স্বাক্ষর- এনারা অত্যধিক ব্যস্ততাদেখান । নিজেদের সংগঠিত রাখতে তাঁদের প্রয়োজন অন্যদের। সুরের প্রতি দৃঢ় আবেগ আছে। এঁরা খ্যাতি পেলেও, আদর্শগত বিষয়ে নিকৃষ্ট হওয়ার প্রবণতা থাকে। শেখার উপর অগাধ বিশ্বাস রাখুন। সীমিত কিন্তু দৃঢ় বন্ধু থাকে। তাঁরা ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার হয়ে থাকেন।

৫.যারা টাইটেলের ওপর জোর দেন- তারা নিজেদের চেয়ে দলকে বেশি বিশ্বাস করেন। এঁনারা নেতা হতে পারেন, যাঁদের বড় দল পরিচালনা করার ক্ষমতা রয়েছে। আত্ম-প্রশংসা দ্বারা প্রভাবিত। ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পরিবারে ঐতিহ্যকে উঁচু করে রাখে। ব্যবসা বাড়িয়ে যেতে পারে।

৬.যারা সইয়ের নীচে দুটি লাইন আঁকেন - এনারা দাম্ভিক এবং আশাবাদী। জীবনকে সবসময় রক্ষা করতে জানেন। সামর্থ্যের বাইরে কাজ করেন। কাজের পরিধি সীমিত। সম্পর্ক স্বাভাবিক থাকে। জীবনযাপন সুন্দর কিন্তু অনিশ্চিত।

৭.যারা শুধুমাত্র নামকে গুরুত্ব দেয় - এনারা স্বতঃসিদ্ধ। প্রতিটি কাজ অধ্যবসায়ের সঙ্গে করুন। তাঁদের ভুল করার সম্ভাবনা কম। এঁরা অন্যদের সঙ্গে সমন্বয়ের ক্ষেত্রে দুর্বল। সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে। তাঁদের অবশ্যই তাদের প্রিয়জনের কথা শোনার অভ্যাস তৈরি করতে হবে।