সৌন্দর্য বজায় রাখতে কলার ব্যবহার জেনে নিন

সৌন্দর্য বজায় রাখতে কলার ব্যবহার  জেনে নিন

কলা আমাদের খুবই পরিচিত ও প্রয়োজনীয় একটি ফল।এই কলা খাওয়া যেমন উপকারী তেমনি সৌন্দর্য বজায় রাখতেও এর জুড়ি মেলা ভার।কলা খুব সহজলভ্য ফল বলে আমাদের প্রত্যেকের ঘরেই কম বেশি থাকে। যখন নানা কাজের জন্য আমরা অনেকক্ষণ খেতে সময় পাইনা তখন অত্যধিক ক্ষিদের সময় কলা আমাদের পেট ও ভরিয়ে দেয়।কলা সংরক্ষণ করা যায়।

কলা শুধু খেতেই কাজে লাগে না। সৌন্দর্য চর্চায় কলার অবদান খুবই গুরুত্বপূর্ণ।ত্বক ও চুলের যত্নে এটি নানা উপকারে আসে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই সৌন্দর্য বজায় রাখতে কলার ভূমিকা সম্পর্কে।

১.ব্রণ দূর করতে- কলার খোসা ব্রণর জন্য দায়ী রোগ জীবাণু ধ্বংস করে ও জ্বালা কমাতে সাহায্য করে| শুধু ব্রণর ওপর কলার খোসার ভিতরের অংশটি ঘষুণ|নিত্য সৌন্দর্য্য চর্চায় এটি সর্বোত্তম উপায়।

২.বার্ধক্য হ্রাস করতে- কলা বলিরেখা কমাতে সাহায্য করে।প্রাকৃতিক উপায়ে সবচেয়ে শক্তিশালী বার্ধক্য নাসের প্যাকের জন্য কলা চটকে তার ভেতরে লেবুর রস ও দই মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরী করতে হবে।এখনএটি একটি নিখুঁত ঘরোয়া প্রতিকার যা অনুসরণ যোগ্য।

৩.আদ্রতা বজায় রাখতে- পটাশিয়াম ও অন্যান্য খনিজ সমৃদ্ধ বলে কলা আদ্রতা ধরে রাখতে সক্ষম।কলা চটকে মুখে মেখে দশ মিনিট মিশ্রণটি বসতে দিতে হবে।এরপর নরম ও নমনীয় ত্বকের ছোঁয়া পেতে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

৪.তেল নিয়ন্ত্রনের জন্য- নিত্য সৌন্দর্য্য চর্চার জন্য কলা ব্যবহারের উত্তম উপায় হল একটি মুখের প্যাক তৈরী করা।কলা, মধু ও লেবুর রস দিয়ে তৈরী মুখের প্যাক অত্যন্ত ফলপ্রদ মুখের শুষ্কতা বজায় রেখে তৈলাক্ততা দূর করতে।

৫.নিস্তেজ ত্বকের জন্য- কলার মধ্যে ভিটামিন সি একটি দুর্দান্ত উপায় যা ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।এর জন্য, কলার সাথে লেবুর রস ও চন্দন মেশাতে হবে।

৬.শুষ্ক অথবা কোঁকড়ানো চুল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য- কলা পটাসিয়াম এবং ভিটামিন 'এ' এর একটি বড় উৎস, যা চুলের পুষ্টি যোগায় ও সতেজতা বাড়াতে সাহায্য করে|কলা চটকে মধু মিশিয়ে নিস্তেজ চুলের জন্য একটি ময়শ্চারাইজিং হেয়ার কন্ডিশনার তৈরী করতে পারে।

৭.হলদেটে দাঁতের প্রতিকার- সাদা ঝকঝক দাঁতের জন্য কলার খোসার ভেতরের অংশ প্রতি রাতে হলদে দাঁতে ঘষতে হবে। কলার ভেতরের পটাসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজ দাঁতের ভেতরে গিয়ে দাঁতকে সাদা করতে সাহায্য করে।