শীতকালের নানা ধরনের রোগ থেকে দূরে থাকবেন কিভাবে জেনে নিন

শীতকালের নানা ধরনের রোগ থেকে দূরে থাকবেন কিভাবে জেনে নিন

ভাইরাস জ্বরের চোখ রাঙানিও এ সময় উপেক্ষা করা যায় না। আবার পুরনো আঘাত বা ব্যথাও শীতকালে বেড়ে যায়। শীতকালে নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। এ সময় সাধারণত সর্দি-কাশি তো হয়ই, আবার কারও কারও শ্বাসকষ্ট বা অ্যাজমার সমস্যাও দেখা দিয়ে থাকে। মোটকথা শীতকালে নানা ধরনের রোগ লেগে থাকে।তাই সবসময় রোগের জন্য ডাক্তার দেখানো সম্ভব নয়। আবার ব্যয়বহুল বটে।তাই কিছু ঘরোয়া উপায় ব্যবহার করে শীতকাল এর নানা ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে।

১.সর্দি কাশি- শীতকালে এটি সাধারণ একটি সমস্যা ও সংক্রামকও বটে। সর্দি, কাশি, চোখ ও নাক দিয়ে জল পড়া, মাথা ব্যথা, গলা ব্যথা, ইত্যাদি দেখা দেয়। বারবার শীতকালে সর্দি কাশি থাকলে আমলকির মোরব্বা খাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও সর্দি কাশি দূর করতে সামান্য গরম জলে লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে খেলে, ঘিয়ে ভাজা রসুন খেলে,কয়েক ফোঁটা লেবুর রস,মধু ও দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে খাওয়া যেতে পারে।

২.গলায় ইনফেকশন- শুকনো ও খসখসে গলা ইনফেকশনের দিকেই ইঙ্গিত দেয়। এ সময় গলায় ব্যথাও শুরু হয়। আবহাওয়া পরিবর্তন ও ঠান্ডার কারণে এমন হয়। হলুদ দুধ নিয়মিত পান করলে উপকার পাওয়া যায়। এছাড়াও গলায় ইনফেকশন দূর করতে হারবাল চা খাওয়া বা নুন জল দিয়ে গারগেল করতে হবে।

৩.আ্যজমা- ফুসফুসের রোগ এটি। শ্বাসনলিতে জ্বালা, ব্যথা হওয়া, বুকের জমাট ভাব, কাশি, শ্বাসকষ্ট এর লক্ষণ। গরম জলে ৫-৬ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার তেল মিশিয়ে খেলে আ্যজমা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।এক গ্লাস দুধে এক কুচি আদা ও এক চামচ হলুদ গুঁড়া দিয়ে মিশিয়ে খেলে এই আ্যজমা দূর হয়।

৪.ইনফ্লুয়েঞ্জা- শীতকালে নাক দিয়ে জল পড়া, গা ও মাথা ব্যথা, জ্বর ও ক্লান্তি এর সাধারণ লক্ষণ।এর হাত থেকে বাঁচতে সমপরিমাণ মধু ও পেঁয়াজ এর রস খেতে হবে।এক চামচ মধু তে ১০- ১৫ টি তুলসী পাতা এর রস মিশিয়ে খেতে হবে বা গরম জল করে এতে নীলগিরি তেল মিশিয়ে ভাপ নিতে হবে। তাহলে উপকার পাওয়া যায়।

৫.গাঁটে ব্যাথা- ঠান্ডার কারণে মাংসপেশী ও হাড়ে ব্যথা শুরু হয়। এর জন্য ঘুম থেকে উঠে ব্যায়াম করা উচিত। এর জন্য রোজ সকালে এক চামচ করে মেথি গুঁড়া খেয়ে গরম জল খেলে উপকার পাওয়া যায়। এছাড়াও নীলগিরি তেল দিয়ে মালিশ করা যেতে পারে বা এক কাপ সামান্য গরম জলে আ্যপেল সাইডার ভিনিগার ও মধু মিশিয়ে খেতে হবে।

৬.হার্টের সমস্যা- শীতকালে হার্ট অ্যাটাকের প্রবণতা বেড়ে যায়। কারণ শীতের কারণে করোনারি আর্টারি সংকুচিত হয়। যার ফলে রক্তচাপ কমে যায়।এর থেকে বাঁচতে অর্জুন ছালের গুঁড়ো ও মধু মিশিয়ে এক গ্লাস গরম জল দিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়। এছাড়াও আদা রসুন এর রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খাওয়া বা রসুনের কোয়া খেলে উপকার পাওয়া যায়।