নাক থেকে সর্দি বা মিউকাস দূর করার উপায় জেনে নিন

নাক থেকে সর্দি বা মিউকাস দূর করার উপায় জেনে নিন

ঋতুবদলের ইঙ্গিত বেশ স্পষ্ট টের পাওয়া যাচ্ছে বাতাসে৷ আচমকা তাপমাত্রার হেরফের হলেই সর্দি-কাশির একটা সমস্যায় ভুগতে আরম্ভ করেন অনেকেই৷ সারা রাত শুকনো কাশি, কাশতে কাশতে বুকে ব্যথা ধরে যায়৷ এই পরিস্থিতিতে সবাই নাজেহাল হয়ে যায়। জানেন তো, শরীর যখন প্রয়োজনের চেয়ে বেশি মিউকাস তৈরি করে, তখনই বাড়তি মিউকাস নাকের দিক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে৷ চলতি কথায় সেটাকেই বলে নাক দিয়ে জল পড়া৷

আচমকা ঠান্ডা পড়লে, অ্যালার্জি হলে, সাইনাসের ইনফেকশন দেখা দিলে, ধোঁয়া-ধুলো বা বিশেষ কোনও গন্ধ ট্রিগার হিসেবে কাজ করলে এমনটা হতে পারে৷ নাক দিয়ে সর্দি বেরনো, কাশি ছাড়াও গলা ব্যথা, শ্বাসে দুর্গন্ধ, ঢোক গেলায় সমস্যাও হতে পারে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক ঘরোয়া উপায়ে সর্দি দূর করার উপায় সম্পর্কে।

১.রসুন- এক কাপ জলে দু তিন কোয়া রসুন ফুটিয়ে নিতে হবে। এর সঙ্গে মেশাতে হবে আধ চামচ হলুদ গুঁড়ো। এই জল খেলে নাক পরিষ্কার হয়ে যাবে। কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেলেও উপকার পাওয়া যায়।

২.আ্যপেল সাইডার ভিনিগার- এক কাপ গরম জলে দুই টেবিল চামচ ভিনিগার ও এক টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে খেলে মিউকাস পরিষ্কার হবে। দিনে দুই থেকে তিন বার খেতে হবে। সর্দি সম্পূর্ণ কমে যাবে।

৩.বাষ্প নিতে হবে- জলের মধ্যে জোয়ান গুঁড়ো মিশিয়ে সেই জলের শ্বাস নিতে হবে। এতে বন্ধ নাক খুলে যাবে, মাথাও হালকা লাগবে।

৪.নুন জল- দুকাপ গরম জলে এক চা চামচ নুন মিশিয়ে নিতে হবে। এই জল নাক দিয়ে টানতে হবে। নাক পরিষ্কার হয়ে যাবে।

৫.ইউক্যালিপটাস অয়েল- বন্ধ নাকে দারুণ কাজ করে ইউক্যালিপটাস অয়েল। একটা পরিষ্কার রুমালে কয়েক ফোঁটা ইউক্যালিপটাস অয়েল নিতে হবে। রুমাল নাকের কাছে ধরে শ্বাস নিন। নাক খুলে যাবে। ঘুম ভাল হবে।সর্দি থাকবে না।

৬.হার্বাল চা- নাকের মিউকাস পরিষ্কার করতে হার্বাল চা খেতে হবে। নাক পরিষ্কার হয়ে যাবে, শরীর থেকে টক্সিনও দূর হবে।

৭.ঝাল টমেটো চা- এক কাপ টমেটোর রস, এক টেবিল চামচ রসুন কুচি, এক টেবিল চামচ লেবুর রস, ঝাল সস ও এক চিমটে নুন মিশিয়ে নিতে হবে। এই চা দিনে দুবার খেতে হবে। সর্দি একেবারে কমে গিয়ে আরাম পাওয়া যায়।