জ্বর কমানোর কিছু উপকারী খাবার সম্পর্কে জেনে নিন

জ্বর কমানোর কিছু উপকারী খাবার সম্পর্কে জেনে নিন

স্বাভাবিক ভাবেই জ্বর হলে অনেক মানুষ এর কিছু খেতে ইচ্ছে করে না।এমন সময় মধুকে চিরতার রস এর মতো খেতে লাগে।তখন সব খাবার বন্ধ হয়ে পথ্য জাতীয় খাবার খেতে হয়।আর তা মুখে না রুচলেও জোর করে খেতে হয়। তবে জ্বর হলে এমন খাবার খাওয়া উচিত যা শরীরে এনার্জি বাড়ানোর পাশাপাশি জ্বর খানিকটা কমাতেও সাহায্য করবে।

এছাড়াও এই সময়ে অন্যান্য সময়ের চেয়ে বেশি জল খাওয়া উচিত।জ্বর হলেই যে ডাক্তারের কাছে গিয়ে ওষুধ খেতে হবে এমনটা নয়।এমন কিছু খাবার আছে যেগুলো খেলে জ্বর ধীরে ধীরে কমতে থাকে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই খাবার গুলো সম্পর্কে।

১.প্রচুর তরল পান করতে হবে- জ্বরের তাপমাত্রা বাড়লে শরীর জলশূন্যতা এর দিকে যেতে পারে।তাই পর্যাপ্ত জল সরবরাহ করা জরুরি। কুসুম গরম জল,ফলের জুস, শরবত, প্রভৃতি তরল জাতীয় খাবার খেতে হবে।জ্বর থাকলে নিয়মিত ৮- ১০ গ্লাস জল খেতে হবে।

২.ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে- ভিটামিন সি সাধারণ সর্দি জ্বর প্রতিরোধ করে।তাই জ্বর এড়াতে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যেমন- বাতাবিলেবু,কামরাঙ্গা, পেয়ারা,আনারস, আমলকি খেতে হবে।

৩.বিভিন্ন ধরনের ফল- ফল, ভিটামিন, খনিজ এবং ফাইবার এর উৎস যা রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা উন্নত করে। কিছু ফলের মধ্যে আ্যন্থোসায়ানসিস থাকে যা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

৪.ভেষজ চা- তুলসী,আদা, লেবু চা জ্বরের জন্য খুবই উপকারী।১ কাপ জলে ৮- ১০ মিনিট আদা ও লবঙ্গ সেদ্ধ করতে হবে।এই চা জ্বরের কারণে হওয়া গলা ব্যাথা, খুসখুসে কাশি প্রভৃতি দূর করতে সাহায্য করে।

৫.চিকেন স্যুপ- চিকেন স্যুপ অনেক দিন থেকে বিভিন্ন রোগ এর খাবার এর তালিকায় রয়েছে।এটি ভিটামিন, খনিজ,ক্যালোরি এর ভালো উৎস।তাই জ্বর হলে শরীর দূর্বল থাকে। শরীরে এনার্জি বাড়াতে চিকেন স্যুপ খাওয়া জরুরী।

৬.ডাবের জল- জ্বর হলে সবার আগে হাইড্রেট থাকা দরকার।জ্বর হলে প্রচুর ঘাম হয় ‌।তাই এইসময় হাইড্রেট থাকা গুরুত্বপূর্ণ।আর হাইড্রেট থাকতে হলে ডাবের জল খেতে হবে।