কপিল শর্মা শো খ্যাত বাঙালি অভিনেত্রী সুমনা ভুগছেন জটিল রোগে !

কপিল শর্মা শো খ্যাত বাঙালি অভিনেত্রী সুমনা ভুগছেন জটিল রোগে !

 বাঙালি মেয়ে সুমনা চক্রবর্তী (Sumona Chakravarti)। প্রথম থেকেই বলিউডে নিজের জায়গা তৈরির লড়াই করছেন তিনি। টেলিভিশনে হিন্দি সিরিয়াল দিয়েই নিজের যাত্রা শুরু করেন তিনি। 'কসম সে', 'বড়ে আচ্ছে লাগতে হ্যায়'-র মতো ধারাবাহিকে কাজ করে নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছেন সুমনা। তবে তাঁকে সব থেকে বেশি মানুষ চিনেছেন ২০১৪ সাল থেকে। সে সময় কপিল শর্মার জনপ্রিয় কমেডি শো, ' কমেডি নাইটস উইথ কপিল শর্মা'তে কাজ করা শুরু করেন তিনি। নানান মজার চরিত্র সেজে মানুষের মন জয় করেছেন সুমনা।

কিন্তু বর্তমানে তিনি খুব খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন। কাজ নেই তাঁর। সেই সঙ্গে ভুগছেন কঠিন অসুখে। এ কথা নিজের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে অর্থাত্‍ ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করে জানান সুমনা। সুমনা সোস্যাল মিডিয়াতেই লেখেন তাঁর কাজ নেই। এবং দশ বছর ধরে কঠিন অসুখে ভুগছেন তিনি। এন্ডোমেট্রিওসিস, জরায়ুর অসুখ। সাধারণত জরায়ুর গায়ে শিরা উপশিরার মতো বা মাংস পিণ্ড তৈরি হতে থাকে। যা অসপরেশন করে সাময়িক সময়ের জন্য সরানো সম্ভব হলেও, ফের তৈরি হয় এই অসুখ।

এর ফলে শরীরে ক্লান্তি ভাব, পিরিয়ডসে অসম্ভব ব্যথা, মুড সুইয়িং, হতে থাকে। যার ফলে রোজকার জীবন ব্যহত হয়। কখনও কখনও এই অসুখ জটিল হতে পারে। এর থেকে বাঁচতে নিয়মিত শরীরচর্চা ও সঠিক খাবার খেতে হয়। কিন্তু পরিস্থিতি এমন হয়েছে পরিবারের মুখে ঠিকমতো খাবার তুলে দিতে পারছেন না অভিনেত্রী। সুমনা আজ একটি শরীরচর্চার ছবি পোস্ট করে লেখেন, " আমি কর্মহীন। কিন্তু আমি ভাগ্যবান এখনও আমি এবং আমার পরিবার খাবার পাচ্ছি। কিন্তু কখনও কখনও আমি নিজেকে দোষী মনে করি।

আমি ২০১১ সাল থেকে এন্ডোমেট্রিওসিসে ভুগছি। যার জন্য আমার মুড সুইয়িং হয়। মানসিক ভাবে ভেঙে পড়ি। আমার স্টেজ ফোর্থ চলছে। আমার সুস্থ থাকার জন্য দরকার সঠিক খাবার, শরীরচর্চা আর মানসিক অবসাদ মুক্ত থাকা। কিন্তু আমি মাঝে মধ্যেই হেরে যাই। আবার যুদ্ধ করি। এবং উঠে দাঁড়াই। এখন খুব খারাপ সময়। লকডাউন আমার জন্য শুধু নয় সবার জন্যই খুব কঠিন সময়। কিন্তু সকলকে এই যুদ্ধ জিততে হবে নিজের মতো করে। হেরে গেলে চলবে না।'' এছাড়াও তিনি লেখেন, যদিও এই পোস্ট ব্যক্তিগত। তবুও লিখছি কারণ আমার মনে হয় এতে হয়তো একজনকেও আমার গল্প উত্‍সাহিত করবে। সুমনার এই পোস্টে বহু মানুষ কমেন্ট করেছেন। তাঁর মনের জোরকে কুর্নিশ জানিয়েছেন। সকলেই চাইছেন যাতে অভিনেত্রী এই খারাপ সময় কাটিয়ে উঠতে পারেন।