কিডনিতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা কোন খাবার বাড়ায় জেনে নিন

কিডনিতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা কোন খাবার বাড়ায় জেনে নিন

কিডনিতে পাথরের সমস্যা বর্তমানে অতি পরিচিত একটি রোগের নাম। দেহের সবচেয়ে পরিচিত একইসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। আর এই অঙ্গ অচল হয়ে যাওয়া মানে অবধারিত মৃত্যু। একটি ছোট পাথর উপসর্গ সৃষ্টি না করেও কিডনিতে হতে পাড়ে। যদি একটি পাথর ৫ মিলিমিটার থেকে বেশি হয় তবে এর ফলে ইউটেরাস এর বাধা হতে পারে যার ফলে নিম্ন পেট বা পেটে তীব্র ব্যথা হয়।

আমাদের দেশে কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা খুব একটা কম নয়। ক্রমশ দিনে দিনে বেড়েই চলছে এর সংখ্যা। বর্তমানে কিডনি স্টোন বা বৃক্কে পাথর জমার সমস্যা এখন প্রায়ই শোনা যায়। কিডনি সমস্যাগুলির মধ্যে অন্যতম হল কিডনিতে স্টোন বা পাথর হওয়ার সমস্যা। তবে কিডনিতে স্টোন বা পাথর হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় বেশ কিছু খাবার। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই খাবার গুলো সম্পর্কে।

১.নুন- এই তালিকায় প্রথমেই আসে নুনের নাম। নির্দিষ্ট পরিমাণে সোডিয়াম খাওয়া  শরীরের পক্ষেও প্রয়োজনীয়। তবে অতিরিক্ত নুন, কিডনি স্টোন এবং উচ্চ রক্তচাপের সম্ভাবনা বাড়ায়।

২.সার্ডিন- কিডনি স্টোনের জন্য অতিরিক্ত পিউরিন অত্যন্ত ক্ষতিকর। সার্ডিন মাছে পিউরিন থাকে বেশি পরিমাণে। তাই কিডনির সমস্যা থাকলে এই মাছ অতিরিক্ত পরিমাণে না খাওয়াই ভাল।

৩.ক্যাফেইন- অতিরিক্ত ক্যাফিন ইউরিনে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। তাই অতিরিক্ত কফি, চকোলেট, চা বা সোডা কিডনি স্টোনের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।

৪.কার্বোনেট ড্রিঙ্ক- সোডা, এনার্জি ড্রিঙ্ক, আর্টিফিসিয়াল ফ্রুট জুসে প্রচুর ফসফেট থাকে। এর ফলে এই ধরনের খাবার বা পানীয় অতিরিক্ত মাত্রায় গ্রহণ করলে কিডনি স্টোনের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

৫.মাংস- কিডনি সুস্থ রাখতে রেড মিট খাওয়ার পরিমান একেবারেই কমিয়ে দিতে হবে। রেড মিটে ইউরিক অ্যাসিডের অত্যন্ত বেশি পরিমাণে থাকে। এর ফলে কিডনিতে পাথর বা স্টোন উৎপন্ন হওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়।

৬.বাদাম- এগুলোর পাশাপাশি অতিরিক্ত বাদাম খেলে বাড়তে পারে কিডনিতে পাথর হওয়ার সম্ভাবনা। কারণ বাদামে প্রচুর পরিমাণে অক্সালেট থাকে। এই উপাদান কিডনির পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর।

৭.কৃত্রিম মিষ্টি- ফিগার সচেতন অনেক মানুষই আজকাল চিনির পরিবর্তে কৃত্রিম মিষ্টি ব্যবহার করেন। কিন্তু কৃত্রিম এই সুগার বেশি পরিমাণে গ্রহণ করলে তা কিডনির সমস্যা তৈরি করতে পারে।