শরীরের নানা সমস্যার সমাধানে বিভিন্ন ধরনের হারবাল চা জেনে নিন

শরীরের নানা সমস্যার সমাধানে বিভিন্ন ধরনের হারবাল চা জেনে নিন

এক কাপ চা দিয়ে দিন শুরু করা বা অবসর সময়ে এক কাপ অনেকেরই খুব প্রিয়। আর সেটা যদি হয় হারবাল বা ভেষজ চা তাহলে ব্যাপারটা আরো স্বাস্থ্যকর হয়। ভেষজ চায়ে ক্যাফেইন থাকে না বিধায় দিনের যে কোনো সময়েই পান করতে পারেন এমনকি ঘুম না হওয়ার দুশ্চিন্তা ছেড়ে রাতেও খেতে পারেন। বাজারে বেশ কিছু ধরনের ভেষজ চা পাওয়া যায় তাই হয়তো কোন চা কিনবেন সেটা অনেকেই বুঝতে পারেন না।

তবে আপনি চাইলে ঘরেও বানিয়ে খেতে পারেন বেশ কয়েক ধরনের ভেষজ চা। তবে তার আগে এসব চায়ের উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিলে আরো সুবিধা হবে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই বিভিন্ন ধরনের হারবাল চায়ের বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা সম্পর্কে।

১.ক্যামোমাইল- যদি হজমের সমস্যা বা অ্যাসিডিটির সমস্যা থাকে তাহলে খাবার পর এক কাপ ক্যামোমাইল চা খেতে পারেন। আবার দুশ্চিন্তাগ্রস্থ থাকা অবস্থায় বা অফিসের কাজ শুরুর আগে খেয়ে নিতে পারেন এক কাপ ভেষজ চা। এই চা এক কাপ খাওয়ার পরপরই  বেশ আরাম পাওয়া যায়।

২.আদা চা- যাদের খাবারে অরুচি রয়েছে তারা খাওয়ার আগে খেয়ে নিতে পারেন এক কাপ আদা চা। যা খাবারে রুচি বাড়াতে সাহায্য করবে। আবার খাবার পরে অনেকের বুক জ্বলার সমস্যা দূর করতেও খেতে পারেন আদা চা। অনেকের হাড়ের জয়েন্ট শক্ত হয়ে থাকা, ফুলে যাওয়া বা ব্যাথার সমস্যা থাকলে দিনে কয়েক কাপ আদা চা খেতে পারেন এসব যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে।

৩.রোজমেরি চা- অনেকেই হয়তো জানেন খাবারের বিভিন্ন রেসিপিতে স্বাদ এবং সুন্দর গন্ধের জন্য রোজমেরি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কিন্তু এটা হয়তো অনেকেই জানেন না যে এক কাপ রোজমেরি চা রাতের ভালো ঘুমের জন্য কতোটা সাহায্য করে। কারণ এই রোজমেরি চা দেহের পেশীকে শিথিল করতে সাহায্য করে। এছাড়া এই চা যকৃত এবং গলব্লাডারের সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করে।

৪.পিপার মিন্ট চা- এই চায়ের কড়া গন্ধ খাবারের রুচি ফিরিয়ে আনে। পিপারমিন্ট চা পেটে গ্যাস, পেট ফাঁপা ইত্যাদির মত হজম সংক্রান্ত সব ধরনের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। বমি ভাব, মাথা ঘুরানো বা মোশন সিকনেসের একটি কার্যকরী ঘরোয়া উপায় হচ্ছে এই চা পান করা।

৫.লেবু চা- খাবার পর ভাল হজমের জন্য জনপ্রিয় এই চা টি পান করতে পারেন। সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে লেমন গ্রাস চায়ের সাথে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে খেলে মুহূর্তেই শরীর চাঙা হয়ে উঠবে। এই লেমন গ্রাস চা উচ্চ রক্তচাপ কমানোর ঘরোয়া উপায় হিসেবে কাজ করে।

৬.এলাচ চা- যদি হজমের সমস্যা থাকে তাহলে এলাচ চা দিতে পারে বেশ অনেকটা স্বস্তি। এই পানীয়টির তীব্র ঝাঁঝালো ও মিষ্টি স্বাদ পেটের ব্যাথা এবং বদহজমের জন্য ঔষধের মত কাজ করে। এই চা পেট ফাঁপার সমস্যা থাকলে সেটাও দূর করতে সক্ষম। বমি ভাব কাটানোর জন্যও খেতে পারেন এলাচ চা।

৭.গোলাপ পাপড়ির চা- তাজা গোলাপ পাপড়ির চা দেহের প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করার জন্য বেশ জনপ্রিয় একটি চা। এর কারণ হচ্ছে এই পানীয়টি ভিটামিন সিতে ভরপুর। ঐতিহ্যগত ভাবে এই চা সাধারণত উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের দেওয়া হয়ে থাকে। এছাড়া রক্তের খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে এই চা নিয়মিত পান করতে পারেন।